ফুলগাজীতে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করে নাকে খত দিয়ে পার পেল ধর্ষক!

ফুলগাজী : ফেনীর ফুলগাজীতে ষষ্ট শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ‘ধর্ষক’ সোহরাব হোসেন (৪০) কে জুতার মালা ও নাকে খত দিয়ে ছেড়ে দিয়েছে সমাজপতিরা। রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার মুন্সিরহাট ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামের ঈদগাহ মাঠে এ সালিশী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সালিশী বৈঠকে নেতৃত্ব দেন স্থানীয় মেম্বার আজম, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আবু সুফিয়ান, পাইলটসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ-যুবলীগের নেতৃবৃন্দ। সালিশী বৈঠকের আগে ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর বাবা-মা থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেন সালিশদাররা।

ফুলগাজী থানা সূত্রে জানা যায়, গত ১১ জুলাই উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের কতুবপুর গ্রামের মৃত মফিজুর রহমানের ছেলে সোহরাব হোসেন পাশবর্তী বাড়ির স্কুল ছাত্রীকে ফুঁসলিয়ে বাড়ির পাশে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করেন। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্কুল ছাত্রীর বাবা-মা স্থানীয় সমাজপতিদের কাজে বাদি হয়। পরে গ্রাম্য সালিশদাররা বিষয়টি অন্য কাউকে না জানানোর অনুরোধ জানিয়ে রোববার সন্ধ্যায় স্থানীয় ঈদগাহ মাঠে জুতার মালা ও নাকে খত দিয়ে মীমাংসা করে দেন। ধর্ষকের বিরুদ্ধে উপযোগী শাস্তি না হওয়ায় ফুঁসিয়ে উঠছে এলাকার লোকজন। স্থানীয় লোকদের দাবি আইনের আওতায় এনে ধর্ষকের উপযুক্ত শাস্তি হোক।

মুন্সিরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন জানান, ধর্ষণ নয় ধর্ষণ এর চেষ্টার কথা তিনি শুনেছেন।

ফুলগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম.এম মুর্শেদ জানান, ষষ্ট শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের বিষয়টি শুনেছি। তবে এখন পর্যন্ত কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। স্কুল ছাত্রী সত্যিকার অর্থে ধর্ষণ হয়েছে কি-না তা এখনো নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছেনা। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষার পর প্রকৃত ঘটনা যাবে। তবে অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে।

ফেনী প্রতিনিধি/নোয়াখালীনিউজ/এসইউ/১৭ জুলাই

Leave a Reply

Your email address will not be published.