সোনাগাজীতে প্রতিবন্ধি তরুণীর সঙ্গে যুককের থানায় বিয়ে

সোনাগাজী: ফেনীর সোনাগাজীতে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধি তরুণীর (১৯) সঙ্গে সেই যুককের পুলিশের হস্তক্ষেপে থানায় বিয়ে হয়েছে। রোববার রাতে সোনাগাজী মডেল থানায় উভয় পক্ষের সম্মতিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে তাদের বিয়ে সম্পন্ন করা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের সুজাপুর গ্রামের প্রতিবন্ধি এক তরুনীর সঙ্গে একই ইউনিয়নের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের ডিশ ক্যাবল অপারেট শওকতুল ইসলাম ওরফে শিমুলের (২২) প্রেমে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দীর্ঘ তিন বছর সম্পর্কের কারণে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই যুবক তরুনীর সঙ্গে একাধিক বার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এতে প্রতিবন্ধি তরুণীটি ৫মাসের অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এরপর শিমুল তাকে বিয়ে করবেনা বলে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে গা ড়াকা দেয় । সমাজপতিদের পরামর্শ মতে গত শুক্রবার তরুণীর পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় ওই যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয়ার পর পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার নিয়ে আসে।
সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হুমায়ুন কবিরের হস্তক্ষেপে রোববার দুপুরে উভয়ের পরিবারের লোকজন ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সামছুল আরেফিন ও ইউপি সদস্য ইমাম হোসেনসহ সমাজপতিদের আলোচনায় ওই তরুনীর সঙ্গে শিমুলের বিয়ে ও আনুষ্ঠানিকতার সময় ধার্য করা হয়। পরবর্তীতে ওই দিন রাতেই দুই ভরি স্বর্ণালংকার দিয়ে ছয় লাখ টাকা দেনমোহরের বিনিময়ে তাদের বিয়ে সম্পন্ন করা হয়। বিয়ের পর নববধূকে শিমুলের পরিবারের লোকজন তাদের বাড়িতে নিয়ে যায়। বিয়ে পড়ান থানা মসজিদের ইমাম মো. আবদুল্লাহ।
এসময় সোনাগাজী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারুনুর রশিদসহ জনপ্রতিনিধি, সমাজপতি ও উভয়ের পরিবারের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির প্রতিবন্ধি তরুনীর বিয়ের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উভয়ের পরিবারের সম্মতিতে বিয়ে হয়েছে। আপোষ মিমাংসা হওয়ায় তরুনীর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ প্রত্যাহার করা হয়েছে। তিনি বলেন, এখন ওই তরুনীর গর্ভে থাকা সন্তান তাঁর পিতৃত্ব পরিচয় পাবে।

ফেনী প্রতিনিধি/নোয়াখালীনিউজ/এসইউ

Leave a Reply

Your email address will not be published.