হাতিয়ায় যুবলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে ওসি’সহ আহত অর্ধশত

হাতিয়া: নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় যুবলীগের দু’পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষ, ভাঙচুর ও অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে ওসি’সহ অন্তত অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ারসেল ও শর্টগানের গুলি নিক্ষেপ করে।

শনিবার (১১ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ওছখালি বাজার এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতরা হচ্ছেনা হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান সিকদার, কনস্টবল দেলোয়ার হোসেন’সহ ৬পুলিশ সদস্য, আওয়ামীলীগ ও যুবলীগ কর্মী জামাল উদ্দিন (৩০), সাখওয়াত হোসেন (২৮), মোসলে উদ্দিন (২৬), নিজাম উদ্দিন (৩০), আবুল কালাম (৫৫), খোরশেদ আলম (৫০), রিয়াদ (৩৫), আব্দুল মালেক (৫৫), ফারুক (২০), নুরুল ইসলাম (২৮), ফারুক উদ্দিন (২২) ও আজগর আলী (২৮)’সহ অর্ধশত। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’সহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিকেলে ওছখালি দ্বীপ সরকারি কলেজ মাঠে যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সাংসদ আয়েশা ফেরদৌস। বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসার পথে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ওলি উল্যার বাসভবনের সামনে পৌঁছলে তাদের ওপর হামলা চালায় যুবলীগের অন্য একটি পক্ষ।

এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশ’সহ উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হয়। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ারসেল ও শর্টগানের গুলি নিক্ষেপ করে।

এই ঘটনার জের ধরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে যুবলীগের একটি পক্ষ ওলি উল্যার ভাতিজা ও হাতিয়া পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. ছাইফ উদ্দিনের অফিসে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও আগুন ধরিয়ে দেয়।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান সিকদার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করার সময় তিনি’সহ পুলিশের ৬সদস্য আহত হয়েছেন। পরে উভয় পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করতে শতাধিক রাউন্ড শর্টগানের ফাঁকা গুলি ও ৫ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করা হয়।

ওসি আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে কয়েকজনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রতিবেদক/নোয়াখালীনিউজ/এসইউ

Leave a Reply

Your email address will not be published.