চাটখিলে শিশুকে গণধর্ষনের পর হত্যা, নিখোঁজের তিনদিন পর লাশ উদ্ধার

চাটখিল: নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় রিয়া আক্তার ইতি (৮) নামে ৩য় শ্রেণীর ছাত্রীকে গণধর্ষনের পর হত্যার ঘটনা ঘটেছে। তিনদিন পর সোমবার রাত ১০টায় পুলিশ মমিনপুর গ্রামের পার্শ্ববর্তী প্রবাসী হোসেন মোল্লার পরিত্যাক্ত বাগান বাড়ীর মাঠে মাটি চাপা অবস্থায় গর্ত থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

ইতি উপজেলার ১নং শাহাপুর ইউনিয়নের দক্ষিন মমিনপুর গ্রামের গোলাম মাওলা ড্রাইভারের মেয়ে। সে স্থানীয় মমিনপুর তরিক উল্যা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেনীর ছাত্রী।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় নিহত ইতি মা রহিমা খাতুন পার্শবর্তী পোদ্দার বাজারের একটি মোবাইল দোকানে মেরামতের জন্য দেয়া তার মোবাইল সেট আনতে যায়। এই সময় শিশু ইতি বাড়ীতে তার মা’কে না পেয়ে খোজাখুজি করে পোদ্দার বাজারের দিকে যাওয়ার পথে রাত প্রায় ৮ টায় সে নিখোঁজ হয়। পরিবারের লোকজন ইতিকে অনেক খোঁজা-খুজি করে না পেয়ে শনিবার রাতে মসজিদের মাইকে নিখোঁজের ঘোষনা দেয়। এতেও তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

তিনদিন পর সোমবার সন্ধ্যায় ইতির বাড়ির পার্শ্ববর্তী প্রবাসী হোসেন মোল্লার পরিত্যাক্ত বাগান বাড়ীর মাঠে একটি গর্ত থেকে র্দুগন্ধ বের হওয়ার স্থানীয় জনতা পুলিশকে খবর দিলে রাত ১০ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। এ সময় স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে মাটি খুড়লে ইতির মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য তা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরন করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসীর ধারনা ইতিকে একা পেয়ে দুবৃত্তরা তাকে পাশবিক নির্যাতন করে। ইতি হয়তো তাদেরকে চিনতে পারায় দুবৃত্তরা তাকে হত্যা করে লাশ মাটি চাপা দিয়ে রাখে। সোমবার গভীর রাতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার একেএম জহিরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন।

ইতির বাবার গোলাম মাওলা জানান, এলাকার মাদকসেবীদের মাঝে কেউ ইতিকে একা পেয়ে তার উপর নির্যাতন করে তাকে হত্যা করেছে। তিনি ইতির হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতারের ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।

এ ব্যপার চাটখিল থানার ওসি তদন্ত আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা স্বিকার করলেও তবে ধর্ষনের ব্যাপারে এখনো মুখ খুলতে নারাজ। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রতিবেদক/নোয়াখালীনিউজ/এসইউ

Leave a Reply

Your email address will not be published.