কোম্পানীগঞ্জে অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে বাখরাবাদের মামলা

কোম্পানীগঞ্জ : নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের (বিজিডিসিএল)অনুমোদনহীন পাইপ লাইন স্থাপনের মাধ্যমে অবৈধ ভাবে গ্যাস ব্যবহার করায় ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে কোম্পানীগঞ্জ থানায়।

বাখরাবাদ গ্যাসের ফেনী বিতরণ কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বিক্রয়) মোঃ আবু সাঈদ সরকার বাদি হয়ে ৩০ নভেম্বর এমামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হচ্ছে চরপার্বতী এলাকার আবদুল হকের ছেলে আবুল বাশার শিপন,মরহুম আলী আহাম্মদের ছেলে সিরাজ উল্লাহ, মরহুম আবুল হাসেমের স্ত্রী আলেয়া বেগম, মৌলভী নুরুল ইসলাম মেম্বারের ছেলে নিজাম উদ্দিন। মামলার আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর পুলিশ বলছে, মামলা হওয়ার পর আসামীরা পলাতক রয়েছে।

উপজেলার চরপার্বর্তী গ্রামের জনৈক এম এ রহিম জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব বরাবরে অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিষয়ে লিখিত ভাবে একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে টনক নড়ে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের। পেট্রোবাংলার ডেপুটি ম্যানেজার (ইঞ্জিনিয়ারিং) দ্বীন মোহাম্মদ সহ একটি টীম সরেজমিনে তদন্ত করেন। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর অপর একটি টীম গত ২৭ নভেম্বর বসুরহাট-চৌধুরীহাট রোডে জাহাঙ্গীর বিএসসি’র বাড়ি হতে মৌলভী নুরুল ইসলাম মেম্বারের বাড়ির সম্মুখ এলাকা পর্যন্ত ৪ব্যাক্তির অনুমোদনহীন অবৈধ গ্যাস পাইপ লাইন উচ্ছেদ করে বিজিডিসিএল কর্তৃপক্ষ। একই সময় গ্যাস আইন ২০১০ ও গ্যাস বিপনন নীতিমালা ২০১৪ লংঘন করে ও সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধ পন্থায় গ্যাস পাইপ নির্মাণ করে গ্যাস সংযোগ নেয়ার ও ব্যবহার করার অপরাধে ৪ ব্যাক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

আসামীরা সকলে সরকারী দলের ছত্র ছায়ায় থেকে অবৈধ পন্থায় অনুমোদনহীন গ্যাস পাইপ লাইন স্থাপন করে সংযোগ নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত গ্যাস ব্যবহার করে আসছে।

বাখরাবাদ ফেনী কার্যালয়ের বিক্রয় ব্যবস্থাপক মোঃ আবু সাঈদ সরকার বলেন, উল্লেখিত ব্যাক্তিগণ অবৈধ ভাবে রাইজার উত্তোলন করে বাজার থেকে রেগুলেটর ক্রয়করে গ্যাস ব্যবহার করে আসছে। এতে সরকার প্রতি মাসে মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে। সরকারও বিজিডিসিএল’র ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।

বাখরাবাদ গ্যাস বিতরণ কোম্পানীগঞ্জ অফিসের টেকনিশিয়ান মোঃ হারুনের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আসামীরা গ্যাস সংযোগ নিয়েছে বলে তারা জানান। অবৈধ গ্যাস পাইপ লাইন স্থাপন,রাইজার উত্তোলন, রেগুলেটর দিয়ে সংযোগ স্থাপনে বিজিডিসিএল’র তালিকাভুক্ত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তারেক কনস্ট্রাকসনের মোঃ আবদুল্লাহ ও একই সংস্থার ফেনী অফিসের মোঃ হোসেন কাজ করেছেও বলে মামলার আসামীরা জানান।

বিজিডিসিএল’র একটি নির্ভর যোগ্য সূত্র থেকে জানাযায়, কোম্পানীগঞ্জে বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৭ শতাধীক অবৈধ গ্যাস সংযোগ রয়েছে। এসকল সংযোগ স্থাপনে বাখরাবাদ কোম্পানীগঞ্জ অফিসের সংশ্লিষ্ট গুটি কয়েক কর্মচারী ও সংস্থাটির তালিকাভুক্ত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জড়িত রয়েছে। অবৈধ সংযোগ গুলো থেকে প্রতি চুলায় মাসে ৮শ টাকা হারে বছরে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে দুর্নীতিবাজ চক্রটি ।

প্রতিবেদক/নোয়াখালীনিউজ/এসইউ

Leave a Reply

Your email address will not be published.