সোনাইমুড়ীতে নিখোঁজের ১৫দিন পর ডোবায় শিশুর লাশ

সোনাইমুড়ী: নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার দেওটি ইউনিয়নে নিখোঁজের ১৫দিন পর মো. সামির (২) নামের এক শিশুর অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের মামা, মামী’সহ কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে ঘাসেরখিল গ্রাম থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত সামির জেলার চাটখিল উপজেলার বাহার উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১ বছর আগে সামিরের মা মৃত্যু বরণ করেন। এরপর তার বাবা প্রবাসী বাহার উদ্দিন আর একটি বিয়ে করেন এবং বিদেশ চলে যান। বাহার উদ্দিন বিদেশ যাওয়ার পর থেকে সামির ও তার বড় বোন তার নানার বাড়ী সোনাইমুড়ী উপজেলার দেওটি ইউনিয়নের ঘাসেরখিল গ্রামের সৈয়দ ব্যাপারী বাড়ীতে মামাদের সাথে থাকত।

গত ১৮ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার হঠাৎ মামার বাড়ী থেকে নিখোঁজ হয় সামির। এরপর বিভিন্ন স্থানে তাকে খোঁজাখুজি করেও কোন সন্ধান না পেয়ে ২০জানুয়ারি শনিবার সোনাইমুড়ী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার মামা দোলোয়ার হোসেন রনি।
শনিবার সকালে স্থানীয় লোকজন তার নানার বাড়ীর পিছনের একটি ডোবার ভিতরে কচুরি ফেনার মধ্যে সামিরের মৃতেদহ দেখতে পায়।

সোনাইমুড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মো. হারুন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার মামা-মামী’সহ কয়েকজনকে থানায় আনা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে যে কোন কেউ তাকে ওই ডোবার মধ্যে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ায় পানিতে ডুবে শিশু সামিরের মৃত্যু হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.