সেনবাগে স্ত্রীর হাত-পা ভেঙ্গে দিলো স্বামী

দাবীকৃত যৌতুকের টাকা না পেয়ে ৪ সন্তানের জননী রৌশন আরা বেগম(৪৩) নামে এক মহিলার হাত-পা ভেঙ্গে দিয়েছে পাষুন্ড স্বামী জহিরুল ইসলাম প্রকাশ বাবুল। বর্তমানে মৃত্যুর যন্ত্রনায় হ্সাপাতাল বেডে কাতরাচ্ছে ওই মহিলা। ঘটনাটি সোমবার নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলা উপজেলার কাদরা ইউনিয়নের পূর্ব আহম্মদপুর গ্রামের হাশেম মৌলভীর বাড়িতে। স্বামীর নির্যাতনের শিকার রৌশন আরা বেগম এঘটনার প্রতিকার চেয়ে সেনবাগ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ।

চিকিৎসাধীন রৌশন আরা বেগম জানায়, তাদের বিবাহ জীবনে পর থেকে তার শুরু থেকেই যৌতুকের জন্য জন্য তার ওপর নানা অজুতাতে মামরধর করতো স্বামী । নির্যাতন সয্য করত না পারায় দুই দফায় তিঁনি বাপের বাড়ি থেকে ওয়ারিশনা সম্পত্তি বিক্রি করে সুখ-শান্তির জন্য স্বামীকে বিদেশে পাঠান। কিন্তু সে কিছুদিন থাকার পর আবারো দেশে চলে আসে আবারো যৌতুকের জন্য তাকে মারধর শুরু করে। কিন্তু তিঁনি নিরুপায় হয়ে ছেলে মেয়েদের কথা চিন্তা করে স্বামীর নির্যাতন সয্য করে সংসার জীবন অভ্যাহত রাখেন।

কয়েক মাস আগে থেকে স্বামী জহিরুল ইসলাম প্রকাশ বাবুল আবারো বাপের বাড়ি থেকে তিন লাখ টাকা যৌতুক এনে দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকে অন্যথায় তাকে তালাক দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করার হুমকি দেয়। বিষয়টি তিঁনি সামাজিক ভাবে জানিয়ে বিচার-শালিশের মাধ্যমে সমাধান হয়। এরপর স্বামী জহিরুল ইসলাম প্রকাশ বাবুল বিভিন্ন অজুহাতে তাকে গালমন্দ করতে থাকে।

ঘটনার দিন সে আবারো যৌতুকের টাকার জন্য বললে রৌশন আরা তা এনে দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন পাষুন্ড স্বামী তাকে গাব গাছের লাঠি দিয়ে এলাপাথাড়ী পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেয় এবং শরীরের (নিতম্বে) পাচায় বেদম পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় মাকে বাচাঁতে এগিয়ে এলে পাষুন্ড পিতা দুই শিশু ফরহাদ ((১৪) মেয়ে জান্নাত(৭)কে ও মারধর করে আহত করে। পরে খবর পেয়ে বাপের বাড়ির লোকজন গুরুত্ব আহত রৌশন আরা বেগমকে উদ্ধার করে সেনবাগ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করান। ঘটনার পর থেকে স্বামী পলাতক রয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো হানুর অর রশিদ চৌধুরী জানান,অভিযুক্তকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জাহাঙ্গীর পাটোয়ারী

Leave a Reply

Your email address will not be published.